Featured Posts

[Blogger][feat1]

অনলাইন টাকা ইনকাম করার উপায় / how to earn money online / mobile, laptop, computer ব্যবহার করে online money earning করার সহজ উপায়

December 30, 2019
মানুষ ও টাকা আজ হয়ে গেছে সমার্থক। অর্থহীন জীবন যেন নিরর্থক আজ। যদিও দার্শনিক তত্ত্ব ও আধ্যাত্মিক জ্ঞান বলে অমোঘ সত্য - জীবন মানে টাকা নয় অর্থ-সম্পদ জীবনের সম্পূরক নয়, নয় পরিপূরক। তবে মানুষ কেন টাকার পিছনে ছোটে, অগ্নিকুন্ডের দিকে ধাবিত পতঙ্গের মতো। কিন্তু কঠিন বাস্তব ঘোষণা করে আর এক নির্মম বাণী - জীবনের সবকিছু হলো টাকা, টাকা ছাড়া বর্তমান বাস্তবের মাটিতে জীবন যাপন করা অসম্ভব, অর্থাভাবের অর্থ হলো দুঃখ-যন্ত্রণার অতলে তলিয়ে যাওয়া। তাইতো মানুষ আজ টাকার পিছনে ছুটছে। সবাই চায় টাকা ইনকাম করতে, money earn করতে। এর জন্য কেউ ফুলটাইম জব ( full time job ) করেন, কেউ আবার পার্টটাইম জব ( part time job ) করেন।
কিন্তু আজকাল টাকা উপার্জন ( money earning ) করার একটি নতুন ট্রেন্ড খুব পপুলার হয়ে উঠেছে, সেটা হল অনলাইন মানি আর্নিং online money earning. আজকাল ইন্টারনেটে মানি আর্নিং ( internet money earning ) এর বিভিন্ন রকম উপায় প্রচলন রয়েছে। এইসব উপায় অবলম্বন করতে পারেন আপনার ক্যারিয়ারের একটা অংশ হিসাবে।



তাহলে আসুন এখন আমরা জেনে নেবো যে অনলাইনে টাকা ইনকাম online money earning এর কিছু সহজ উপায়। এক্ষেত্রে আপনার মোবাইল ফোন বা ল্যাপটপ অথবা কম্পিউটার ( mobile, laptop, computer ) ব্যবহার করতে পারেন, এর সাথে সাথে ইন্টারনেট সংযোগ ( internet connection ) থাকলেই হবে। বর্তমানে জিও ফোরজি মোবাইল ইন্টারনেট ( jio 4g mobile internet ) প্রায় সর্বত্র পাওয়া যাচ্ছে, জিওর ইন্টারনেট প্ল্যান jio unlimited pack খুবই সস্তা।

অনলাইন টাকা ইনকাম করার উপায় / how to earn money online / mobile, laptop, computer ব্যবহার করে online money earning করার সহজ উপায় :


1. online earn করার উপায় হল YouTube -


আপনি নিশ্চয়ই জানেন যে আপনার মোবাইল ফোনে ইউটিউব ( YouTube ) নামে একটি অ্যাপ আছে। আপনিও নিশ্চয়ই মাঝে মাঝে এই ইউটিউব খুলে ভিডিও ( YouTube video ) দেখেন, তাইতো? ইন্টারনেট দুনিয়ায় সবচেয়ে পপুলার হলো Google এর এই প্লাটফর্ম অর্থাৎ YouTube, কেননা প্রতিদিন কোটি কোটি মানুষ ইউটিউব ভিজিট করেন, এনজয় করেন। আবার এই ইউটিউব ব্যবহার করেন সারা বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ টাকা উপার্জন করেন।

এখন প্রশ্ন হল যে আপনি কিভাবে ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন ?

এর জন্য প্রথমে আপনার প্রয়োজন একটি ইউটিউব চ্যানেল ( YouTube channel ). YouTube money earn করার জন্য আপনার Gmail account ব্যবহার করে একটি YouTube channel create করতে হবে।
ইউটিউব চ্যানেল ক্রিয়েট করার জন্য আপনাকে এর পদ্ধতি জেনে নিতে হবে, আর এটা কোন কঠিন ব্যাপার নয়, বরং খুব সহজ। এ বিষয়ে তথ্য জানার জন্য আপনি Google অথবা Chrome browser ওপেন করুন, তাতে সার্চ বারে লিখুন "how to create YouTube channel ( in Bengali / Hindi / English ), তারপর সার্চ করুন। এরপর YouTube channel তৈরি করার বিষয়ে অনেক প্রবন্ধ (articles) আপনি দেখতে পাবেন, সেখান থেকে আপনি ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করার পদ্ধতি জেনে নিন এবং খুব সহজেই একটা ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করে ফেলুন, আর এই ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করার জন্য কোন টাকা পয়সা লাগবে না, সম্পূর্ণ ফ্রি।

ধরা যাক ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করা হয়ে গেল, তাহলে এখন কি করনীয় ? এখন আপনি যা করতে পারেন, তাহল আপনার ইউটিউব চ্যানেলে আপনার ভিডিও আপলোড করুন।
কিন্তু প্রশ্ন হল যে ইউটিউবে ভিডিও আপলোড করার জন্য আমি ভিডিও কোথায় পাবো? YouTube video upload করার জন্য আপনি নিজেই video তৈরি করতে পারেন।

তাহলে চলুন এখন আমরা আলোচনা করব ইউটিউব ভিডিও ( YouTube video ) তৈরি করার একটি সহজ উপায়। এই ইউটিউব ভিডিও তৈরি করার জন্য আপনার কোন খরচাপাতি লাগবেনা, যা লাগবে তা হল আপনার মানসিকতা এবং একটি মোবাইল ফোন। এই দুটো হাতিয়ার সম্বল করেই আপনি ভিডিও তৈরি করতে পারবেন এবং আপনার YouTube channel grow করতে পারবেন।

YouTube video তৈরি করার একটি সহজ উপায় হল মোবাইলে গেম খেলা। এ কথাটি শুনতে আপনার খুব অবাক লাগছে তাইনা, কিন্তু এটা বাস্তব, কারণ এখন ইউটিউবে প্রচুর gaming channel পাওয়া যায় এবং এরা যথেষ্ট টাকা পয়সা রোজগার করে ইউটিউব থেকে। আপনার মোবাইলে গেম খেলে আপনি টাকা রোজগার করতে পারেন। এর জন্য প্রথমে আপনি প্লে স্টোর ( Play Store ) থেকে পাবজি মোবাইল PubG mobile এবং আরো অনেক popular games ডাউনলোড করে ফেলুন। এখন কয়েকদিন ধরে এই গেমগুলি আপনি খুব মন দিয়ে খেলতে থাকুন, যাতে আপনার এই গেম খেলার দক্ষতা আরও বৃদ্ধি পায়। আর যখন আপনি মোবাইল গেমস ( mobile games ) খেলার ব্যাপারে দক্ষ হয়ে উঠবেন, তখন আপনি আপনার গেম প্লে রেকর্ড করতে পারেন। অর্থাৎ আপনার কোন এক স্ক্রিন রেকর্ডার ( screen recorder - mobizen screen recorder, AZ screen recorder ) ব্যবহার করে আপনার gameplay শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত রেকর্ড করে ফেলুন, এর ফলে আপনার একটি গেমিং ভিডিও ( gaming video ) তৈরি করা হয়ে গেল। এখন এই ভিডিওগুলি আপনি সরাসরি আপনার ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করে দিতে পারেন, অথবা আপলোড করার আগে কিছুটা এডিট করে নিতে পারেন যদি আপনার মনে হয় এডিটিং এর দরকার আছে। video edit করার জন্য অনেক রকম popular video editor app আপনি Play Store থেকে ডাউনলোড করে নিতে পারেন, video editing করার জন্য সবচেয়ে ভালো ও পপুলার video editor app হল KineMaster, PowerDirector ইত্যাদি।

তো এখন কথা হল যে এভাবে যদি আপনি ধারাবাহিকভাবে আপনার ইউটিউব চ্যানেলে ভিডিও আপলোড করতে থাকেন, তাহলে আপনি টাকা কখন পাবেন, কত টাকা পাবেন, অর্থাৎ আপনার money earning কিভাবে হবে ?
এই প্রশ্নের উত্তরে বলা যায় যে যখন আপনার ইউটিউব চ্যানেলে ( YouTube channel ) কমপক্ষে 1000 সাবস্ক্রাইবার ( 1000 subscribers ) পাওয়া যাবে এবং আপনার ইউটিউব চ্যানেলের মোট ওয়াচ টাইম 4000 ঘন্টা পূর্ণ হবে, তখন থেকে আপনি ইউটিউব পার্টনার প্রোগ্রাম ( YouTube partner program ) এ যোগদান করার সুযোগ পাবেন। অর্থাৎ এই সময় আপনি আপনার চ্যানেল মনিটাইজ ( YouTube channel monetize ) করার জন্য ইউটিউব এর কাছে আবেদন করতে পারেন। আপনার YouTube channel monetization করানোর এপ্লাই করার জন্য আপনি ক্রোম ব্রাউজারে আপনার ইউটিউব সেটিংসে গিয়ে monetization option অনুসরণ করুন এবং তিনটি পর্যায়ে আপনার মনিটাইজেশন এপ্লাই ( apply for monetization ) করার প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ করতে হবে। এ বিষয়ে আরও বিস্তারিত জানার জন্য আপনি Google search করুন "How to apply for monetization my YouTube channel".
যদি আপনার ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন এর উপযুক্ত হয় তখন Google AdSense আপনার YouTube video তে বিজ্ঞাপন প্রচার করবে অর্থাৎ ad serve করবে। এক্ষেত্রে Google AdSense আপনার চ্যানেলে বিজ্ঞাপন প্রচার করার মাধ্যমে উপার্জিত অর্থের প্রায় 50% আপনাকে প্রদান করবে। ওই টাকা আপনি সরাসরি আপনার ব্যাংক একাউন্টে পেয়ে যাবেন।

তো আজকে আমরা online money earn করার ক্ষেত্রে শুধুমাত্র একটি দিক নিয়ে আলোচনা করলাম, তবে খুব তাড়াতাড়ি এই বিষয়ে অর্থাৎ মোবাইল ফোন ব্যবহার করে অনলাইনে টাকা রোজগারের ব্যাপারে আরও বিভিন্ন পদ্ধতি ও উপায় নিয়ে আমরা আলোচনা করব, প্রবন্ধ প্রকাশ করব।
অনলাইন টাকা ইনকাম করার উপায় / how to earn money online / mobile, laptop, computer ব্যবহার করে online money earning করার সহজ উপায় অনলাইন টাকা ইনকাম করার উপায় / how to earn money online / mobile, laptop, computer ব্যবহার করে online money earning করার সহজ উপায় Reviewed by Ayurvedic-Care on December 30, 2019 Rating: 5

25 শে ডিসেম্বর অর্থাৎ বড়দিনে কেক খাওয়া হয় কেন? (Christmas 2019, 25th December)

December 25, 2019

25 শে ডিসেম্বর অর্থাৎ বড়দিনে কেক খাওয়া হয় কেন? (Christmas 2019, 25th December).



সকল বন্ধুকে জানাই হ্যাপি ক্রিসমাস ডে, বড়দিনের প্রীতি ও শুভেচ্ছা, Happy Christmas day 2019 -

আজকে এই লেখাতে আমরা জেনে নেব বড়দিনে কেক খাওয়ার কারণ এবং উৎস।


প্রতি বছর 25 ডিসেম্বর তারিখে ক্রিসমাস উৎসব পালন করা হয়, এই উপলক্ষে জনগণ তার নিজের নিজের রুচি অনুযায়ী বড়দিন পালন করেন। একে কেন্দ্র করে কেক খাওয়া এবং মদ্যপান করা খ্রিস্টান ফ্যামিলির স্বাভাবিক ব্যাপার। এর সাথে সাথে নানা রকমের কেক পেস্ট্রি পাই ইত্যাদিও বানানো হয়। কিন্তু ক্রিসমাস কে বিশেষ আকর্ষণীয় করে তুলেছে plum cake.

Christmas 2019 পালন করার লোকজন ঘরে অথবা বাজার থেকে প্লাম কেক নিয়ে আসেন। আবার অনেকে তো মাসখানেক আগে থেকেই এই কেক তৈরি করার কাজে লেগে পড়েন। রম অথবা ব্র্যন্ডী তে বাদাম অর্থাৎ ড্রাই ফ্রুটস ভিজিয়ে রেখে দেন‍, তারপর ক্রিসমাস ডে র কিছুদিন আগে এতে অন্যান্য বস্তু মিশিয়ে কেক তৈরি করে নেওয়া হয়। এই কারণে এই কেকের স্বাদ খানিকটা তেতো হতে পারে।

ক্রিসমাস প্লাম কেক ( Christmas plum cake ) বানানোর জন্য ব্যবহার করা হয় শুকনো ফল আঙ্গুর কিসমিস বাদাম অথবা অনেকের রুচি অনুযায়ী তাজাফল ব্যবহার করা হয়। অধিকাংশ লোকজন রম অথবা ব্র্যন্ডি পরিপূর্ণ ড্রাই ফ্রুটস মিশিয়েয়ে দিতে পছন্দ করেন, আবার কিছু লোক মদ ব্যবহার না করেও কেক তৈরি করতে পছন্দ করেন।

কিন্তু চলুন আজকে আমরা জেনে নেব ক্রিসমাস ডে তে কেক বানানো ও কেক খাওয়ার পরম্পরার পিছনে কি কারণ রয়েছে ? কেনই বা 25 শে ডিসেম্বরের এই দিনটাতে কেক খাওয়ার রীতি প্রচলিত হয়েছে সারাবিশ্বে ?

প্লাম কেক খাওয়ার রীতি মধ্যযুগে শুরু হয়েছিল, যেখানে ক্রিসমাস আসার এক সপ্তাহ আগে থেকেই লোকজন উপবাস পালন করতেন, এই ব্রত পালন করার মধ্য দিয়েই তারা শ্রদ্ধা ও ভক্তি ভরে একটি উৎসব প্রকৃতপক্ষে পালন করতেন। এক সপ্তাহ ব্যাপী আবার অনেকের মতে 12 দিনব্যাপী পালন করা এই ব্রতের উপবাস ভঙ্গের দিনটি ছিল 25 ডিসেম্বর। আর ঐদিন তারা নানারকম খাবার-দাবার ও পিঠে পুলির আয়োজন করত আর এই পিঠে পুলির মধ্যে অন্যতম ছিল পুডিংগ। এই পুডিং বা দলিয়া বানানোর জন্য ব্যবহার করা হতো বাদাম নাটস ড্রাই ফ্রুটস মসালা মধু। এছাড়া কখনো কখনো ব্যবহার করা হতো ডিম ও মাংস। এই পুডিং হলো আজকের আধুনিক কেকের আদিরূপ। এভাবেই ক্রিসমাস ডে তে অর্থাৎ 25 শে ডিসেম্বর কেক খাওয়ার রীতি সারা বিশ্বে প্রচলিত হয়ে যায়। যেহেতু ঘটনাচক্রে প্রভু যীশুর জন্মদিন 25 ডিসেম্বর, এর ফলে ক্রিসমাস উৎসব এবং প্রভু যীশুর জন্মদিন পালনের উৎসব 25 ডিসেম্বর মিলেমিশে এক হয়ে যায়।
25 শে ডিসেম্বর অর্থাৎ বড়দিনে কেক খাওয়া হয় কেন? (Christmas 2019, 25th December) 25 শে ডিসেম্বর অর্থাৎ বড়দিনে কেক খাওয়া হয় কেন? (Christmas 2019, 25th December) Reviewed by Ayurvedic-Care on December 25, 2019 Rating: 5

শরীরে ভিটামিন ডি কম হলে কি কি লক্ষণ দেখা যায় / Symptoms of Vitamin D deficiency in Bengali -

December 03, 2019
শরীরে ভিটামিন ডি কম হলে কি কি লক্ষণ দেখা যায় / Symptoms of Vitamin D deficiency in Bengali -


ভিটামিন ডি একটি প্রয়োজনীয় ভিটামিন, যার মাত্রা কম হলে শরীরে কুপ্রভাব পড়তে পারে। যখন আমাদের শরীরে ভিটামিন ডি কম হতে থাকে তখন শরীরে বেশ কিছু সংকেত এবং লক্ষণ দেখা যায়। ভিটামিন ডি এর মাত্রা কম হলে বিভিন্ন ব্যক্তি অনুসারে বিভিন্ন ধরনের সংকেত দেখা যায়, যেমন ভিটামিন ডি এর ঘাটতি হলে কিছু মানুষের মধ্যে মাথা ঘোরা দুর্বলতা এবং ওজন বৃদ্ধি পাওয়ার মতো সমস্যা সৃষ্টি হয়। ভিটামিন ডি এর ঘাটতি হওয়ার প্রাথমিক লক্ষণ গুলো যদি আমরা জেনে নিতে পারি তাহলে আগে থেকে সুরক্ষিত থাকা সম্ভব। কেননা এর ফলে যেমন ভিটামিন ডি এর ঘাটতি পূরণ করা সম্ভব, তেমনি ভিটামিন ডি এর ঘাটতি জনিত ক্ষতিকর প্রভাব থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে।

ভিটামিন ডি এর উৎস / Vitamin D sources in Bengali -

ভিটামিন ডি এর একটি গুরুত্বপূর্ণ উৎস হলো সূর্যের আলো। এছাড়া যেসব খাদ্য গ্রহণ করলে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ডি পাওয়া সম্ভব সেগুলি হল-

# ডিমের কুসুম
# কড লিভার তেল
# মাশরুম
# হিংগ
# স্যালমন মাছ
# কমলালেবু
# দুধ
# দই

ভিটামিন ডি এর ঘাটতির লক্ষণ / Vitamin D deficiency symptoms in Bengali -

শরীরে ভিটামিন ডি এর ঘাটতি হলে শরীরে নানা রকমের রোগ লক্ষণ সৃষ্টি হতে পারে। সুতরাং শরীরে যাতে ভিটামিন ডি এর ঘাটতি না হয় সে ব্যাপারে আমাদের সচেতন থাকা খুব জরুরী।

ভিটামিন ডি এর ঘাটতির লক্ষণ ইনফেকশন (সংক্রমণ) / Vitamin D deficiency symptom- infection

ভিটামিন ডি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা মজবুত করতে সাহায্য করে, যার ফলে আমাদের শরীর রোগ সৃষ্টিকারী ভাইরাস এবং ব্যাকটেরিয়া বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতা অর্জন করে। সুতরাং যদি কোন ব্যক্তি বারবার জ্বর সর্দি কাশি ফ্লু ইত্যাদি সমস্যায় আক্রান্ত হয়, তাহলে তার শরীরে ভিটামিন ডি এর ঘাটতি হতে পারে।

ভিটামিন ডি এর ঘাটতি হলে চুল ঝরে পড়তে পারে / symptoms of vitamin D deficiency - hair fall

চুল ঝরে পড়ার অনেক রকম কারণ থাকতে পারে, তারমধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ হলো শরীরে নানা রকম পুষ্টি তত্ত্বের অভাব, বিশেষ করে ভিটামিন ডি এর ঘাটতি। কেননা ভিটামিন ডি চুলকে সুস্থ-সবল রাখতে সাহায্যকারী একটি ভিটামিন। এই কারণে যদি কোন ব্যক্তির শরীরের রক্তে ভিটামিন ডি এর মাত্রা হ্রাস পায় তাহলে চুল ঝরে পড়ার লক্ষণ প্রকট হতে পারে।

শরীরে ভিটামিন ডি কম হলে শরীর দুর্বল হয়ে পড়ে / Fatigue is a symptom of vitamin D deficiency -

 শরীরের দুর্বলতা ভিটামিন ডি এর ঘাটতির একটি প্রাথমিক লক্ষণ হিসাবে গণ্য করা হয় যদিও নানারকম কারণে শরীরে দুর্বলতা সৃষ্টি হতে পারে‍, কিন্তু ভিটামিন ডি কম হলে শরীরের দুর্বলতা এবং এনার্জি হ্রাস পাওয়া স্থায়ী সমস্যা হিসেবে দেখা যায়। সুতরাং শরীরের ক্লান্তি এবং দুর্বলতা জনিত সমস্যা কখনোই এড়িয়ে যাওয়া উচিত নয়, বরং এক্ষেত্রে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী শরীরে ভিটামিন ডি এর ঘাটতি পূরণ করার চেষ্টা করা উচিত। কেননা শরীরের ক্লান্তি এবং দুর্বলতা যেমন প্রতিদিনের কাজকর্ম কে বিঘ্নিত করে, তেমনি ব্যক্তিকে মানসিক ভাবে অস্থির করে তুলে।

ভিটামিন ডি এর ঘাটতির লক্ষণ মাথা ঘোরা / vitamin D deficiency symptom - dizziness.

একটি গবেষণায় জানা গেছে যে vertigo সমস্যার সরাসরি সম্পর্ক শরীরে ভিটামিন ডি এর ঘাটতি সাথে। কম ভিটামিন ডি লোকজনকে বেনাইন পারক্সিজ্মল পজিশনাল ভার্টিগো (BPPV) আক্রান্ত করার সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যায়। এই পরিস্থিতিতে হঠাৎ করে মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতার পরিবর্তন, মাথা ঘোরা এবং ভারসাম্য হারানোর মত লক্ষণ দেখা যায়।

ভিটামিন ডি এর ঘাটতি সংকেত হলো মানসিক অবসাদ / depression is a symptom of vitamin D deficiency in Bengali -

গবেষণা থেকে জানা গেছে যে ভিটামিন ডি মানুষের মুড নিয়ন্ত্রণ করতে এবং ডিপ্রেশন বা মানসিক অবসাদ দূর করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ভিটামিন ডি সেরোটোনিন (serotonin) এবং ডোপামিন (dopamine) কম হওয়ার হাত থেকে শরীরকে রক্ষা করে, এই দুইটি জৈব-রাসায়নিক যেমন মানুষের মন ও মুড ঠিক রাখতে সাহায্য করে তেমনি ডিপ্রেশন থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। সুতরাং আমাদের শরীরে ভিটামিন ডি এর ঘাটতি হলে সেরোটোনিন এবং ডোপামিন এর কার্যকারিতা কমে যায়, সে ক্ষেত্রে ডিপ্রেশন সৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা প্রকট হয়ে ওঠে।

ভিটামিন ডি কম হলে হাড়ে এবং পিঠে ব্যথা হয় / vitamin D deficiency causes bone and back pain in Bengali -

ভিটামিন ডি নানা কারণে শরীরের হাড় সুস্থ-সবল রাখতে খুবই উপকারী। এটা শরীরের ক্যালসিয়াম অবশোসন করতে সাহায্য করে, হাড় মজবুত রাখতে সাহায্য করে। সুতরাং কোন ব্যক্তির ঘাড়ে এবং পিঠে ব্যথা হওয়ার সমস্যা হলে বুঝতে হয় যে ওই ব্যক্তির রক্তে ভিটামিন ডি এর ঘাটতি থাকতে পারে। একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, যে সমস্ত মহিলাদের শরীরে ভিটামিন ডি এর ঘাটতি রয়েছে তাদের হাড়ে এবং পিঠে ব্যথা হওয়ার সমস্যা প্রকট, তাদের তুলনায় যেসব মহিলাদের শরীরে ভিটামিন ডি এর ঘাটতি নেই।

ভিটামিন ডি এর ঘাটতি হলে মাংসপেশিতে ব্যথা হয় / vitamin D deficiency leads to muscle pain in Bengali -

শরীরে ভিটামিন ডি এর ঘাটতি হলে বাচ্চা এবং বয়স্ক মানুষদের মাংসপেশীতে ব্যথা হওয়ার মত সমস্যা হতে পারে। সুতরাং পুরানো ব্যথা এবং ভিটামিন ডি এর ঘাটতি উভয়ের মধ্যে সম্পর্ক রয়েছে। একটি গবেষণায় জানা গেছে যে ভিটামিন ডি সেবন করার ফলে পুরানো ব্যথা সম্পর্কিত 71% বয়স্ক মানুষের মাংস পেশিতে ব্যথা কম হয়।
শরীরে ভিটামিন ডি কম হলে কি কি লক্ষণ দেখা যায় / Symptoms of Vitamin D deficiency in Bengali - শরীরে ভিটামিন ডি কম হলে কি কি লক্ষণ দেখা যায় / Symptoms of Vitamin D deficiency in Bengali - Reviewed by Ayurvedic-Care on December 03, 2019 Rating: 5

লেবুর উপকারিতা / Lemon benefits in Bengali

November 20, 2019

লেবুর উপকারিতা / Lemon benefits in Bengali -


Benifits of lemon in Bengali

লেবু হল সাইট্রিক অ্যাসিড যুক্ত একটি ফল। টকরসে পরিপূর্ণ এই ফলটি বহু প্রাচীনকাল থেকে ভারতীয় সমাজে এর ব্যবহার প্রচলিত। লেবু ভিটামিন সি যুক্ত খাদ্য হিসাবে যেমন গুরুত্বপূর্ণ, তেমনি আয়ুর্বেদ শাস্ত্রে এর ভূমিকা অনস্বীকার্য, কারণ চর্মরোগ থেকে শুরু করে নানারকম ছোট-বড় শারীরিক সমস্যার জন্য লেবু ব্যবহার করা হয়। তাহলে চলুন আজকের এই লেখা থেকে আমরা জেনে নেব লেবুর উপকারিতা।

লেবুর উপকারিতা / Benefits of lemon in Bengali :


1. কিডনি পাথর / Kidney stone -


কিডনি স্টোন দূর করতে লেবুর রসের উপকারিতা দেখা গেছে। কিডনি স্টোন একটা চিকিৎসা যোগ্য পরিস্থিতি, যেখানে অবশিষ্ট বর্জ্য পদার্থ কিডনিতে জমতে থাকে এবং এটি ক্রিস্টাল রূপে গড়ে ওঠে ধীরে ধীরে, এর থেকে নিষ্কৃতি পাওয়ার জন্য লেবু ব্যবহার করা যেতে পারে। একটি গবেষণা অনুসারে লেবুতে উপস্থিত সাইট্রিক এসিড কিডনিতে স্টোন গড়ে উঠতে বাধা দেয়। সাইট্রিক অ্যাসিড কিডনি স্টোন ভেঙ্গে ফেলতে এবং প্রস্রাব নালী থেকে বাইরে বের করে দিতে সাহায্য করে। আরও একটি গবেষণা অনুসারে দেখা গেছে যে প্রতিদিন দু চামচ লেবুর রস জলের সাথে মিশিয়ে সেবন করলে কিডনি স্টোনের ঝুঁকি থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব।

2. শরীরের স্থূলতা / Weight Loss -


শরীরের অতিরিক্ত স্থূলতার কারণে আপনি যদি সমস্যায় পড়ে থাকেন এবং যদি প্রাকৃতিক উপায়ে শরীরের স্থুলতা কমাতে চান তাহলে লেবু আপনাকে সাহায্য করতে পারে লেবু। একটি গবেষণা থেকে জানা গেছে যে লেবুতে উপস্থিত পলিফেনল্স ওবেসিটি নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। শরীরে অতিরিক্ত ফ্যাট জমা হতে বাধা সৃষ্টি করে এই পলিফেনল্স।
অন্য একটি গবেষণা থেকে জানা গেছে যে ডিটক্স ড্রিঙ্ক হিসাবে লেবু শরীরের ফ্যাট কম করতে সাহায্য করে। এর সাথে সাথে হার্টের রোগের ঝুঁকি অনেকটা কম করে। এছাড়াও লেবুতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি পাওয়া যায়। শরীরের স্থূলতা কম করার জন্য ভিটামিন সি একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান।

3. হজম শক্তি / Digestive System -


লেবুর গুণ পাচনতন্ত্রের জন্য খুবই উপকারী। সকালে খালি পেটে এক গ্লাস গরম জলে লেবুর রস সহ পান করলে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা সেরে যায়, এর সাথে সাথে হজম শক্তি বৃদ্ধি পায়। লেবুতে উপস্থিত অম্লতা (এসিডিটি) পাকস্থলীর হাইড্রোক্লোরিক এসিডের উতপাদনে উত্তেজিত করে, যার ফলে হজম শক্তি বৃদ্ধি পায়। লেবু অন্য খাদ্য উপাদান গুলিকে অবশোসন করতে সাহায্য করে এবং শরীরকে হাইড্রেট করতে সাহায্য করে, যার ফলে পাচনতন্ত্রের উন্নতি ঘটে।

4. ক্যান্সার / Cancer -


আপনি জানলে অবাক হয়ে যাবেন যে ক্যান্সারের মতো ভয়ঙ্কর রোগ প্রতিরোধ করতে সক্ষম লেবু। একটি গবেষণা থেকে জানা গেছে যে লেবুর মত একটি সাইট্রাস ফল সেবন করলে অগ্নাশয় ক্যান্সার (Pancreatic cancer) থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। অন্য একটি গবেষণা থেকে জানা গেছে যে লেবুতে উপস্থিত ফ্লাভোনয়েড্স অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে।

5. দাঁতে ব্যথা / Tooth Pain (Toothache) -


দাঁত এবং মাড়ির ব্যথা নিরাময় করতে লেবু খুবই উপকারী। লেবুতে উপস্থিত ভিটামিন সি এর ভূমিকা এখানে রয়েছে। একটি রিপোর্ট অনুসারে ভিটামিন-সি বয়স্কদের দাঁত ওঠার পরে যে ব্যথা সৃষ্টি হয় তা দূর করতে সাহায্য করে লেবু।

6. রক্তাল্পতা / Anaemia -


এনিমিয়া হলো একটি রক্ত বিকার, এর ফলে রক্তের লাল রক্ত কণিকার সংখ্যা খুবই কমে যায়। লাল রক্ত কণিকা নির্মাণ করতে আয়রনের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। শরীরের আয়রনের ঘাটতি পূরণ করতে সক্ষম লেবু। লেবু একটি সাইট্রাস ফল, যাতে প্রচুর পরিমাণে আয়রন পাওয়া যায়।

7. রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা / immune system -


লেবুর একটি গুরুত্বপূর্ণ উপকারিতা হলো শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করা। ইমিউন সিস্টেম বাড়াতে সক্ষম হলো ভিটামিন সি, লেবুতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি পাওয়া যায়। ভিটামিন সি হলো ইমিউন বুস্টার একটি খাদ্য উপাদান, যেটা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে, এর ফলে শরীর বাইরের রোগ জীবাণুর আক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে পারে।

8. লিভার / Liver -


লিভারের জন্য লেবু খুবই উপকারী। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট গুণে ভরপুর এই ফল, যা লিভারকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। একটি বৈজ্ঞানিক গবেষণায় জানা গেছে যে অ্যালকোহলে আক্রান্ত লিভারকে ঠিক করতে সাহায্য করে লেবু।

9. মুখের ব্রণ ও ফুসকুড়ি / pimples acne -


এখানেও লেবুতে উপস্থিত ভিটামিন সি এর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার প্রমাণ পাওয়া গেছে। ভিটামিন সি অ্যান্টি-ইনফ্লামেটরি, যেটা মুখের ব্রণ ও ফুসকুড়ি এবং রোসাসিয়া সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে।
লেবুর উপকারিতা / Lemon benefits in Bengali লেবুর উপকারিতা / Lemon benefits in Bengali Reviewed by Ayurvedic-Care on November 20, 2019 Rating: 5

পেয়ারা খেলে কি উপকার পাওয়া যায় / Guava benefits in Bengali | Ayurvedic-Care |

November 07, 2019

পেয়ারা খেলে কি উপকার পাওয়া যায় / Guava benefits in Bengali

Guava Benifits in Bengali


মানুষের প্রতিদিনের জীবন যাপনের জন্য খাদ্য তালিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই পরিস্থিতিতে তাজা শাক-সবজি সেবন করার সাথে সাথে তাজা ফল যুক্ত করা খুব জরুরি। যখন ফলের কথা ওঠে তখন সবাই আপেল আঙ্গুর বেদানা আম ইত্যাদি দামি দামি ফলের কথা সবাই বলেন, কিন্তু পেয়ারার মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ ফল যা অতি পুষ্টিগুণে ভরপুর, অথচ এই ফলটির কথা আমাদের সবসময় মনেই থাকেনা, হাটে বাজারে ফলের দোকানে গেলেই আপেল আঙ্গুর বেদানার দিকে আমাদের চোখ পড়ে, কিন্তু আমারা পেয়ারার কথা ভাবি না। কিন্তু পেয়ারা একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টিকর ফল, যা ভারতের সর্বত্র পাওয়া যায় গ্রামে শহরে হাটে বাজারে, এছাড়া এটি দামেও সস্তা অন্যান্য ফলের তুলনায়। পেয়ারার পুষ্টিগুণ এবং ঔষধি গুনাগুন আমাদের শরীরকে নানারকম রোগ-ব্যাধি থেকে সুরক্ষিত রাখে। সুতরাং নিয়মিত পেয়ারা সেবন করা খুবই জরুরি। আজকের এই লেখা থেকে আমরা জেনে নেব যে পেয়ারার উপকারিতা এবং পেয়ারার ওষুধি গুনাগুন সম্পর্কে।

পেয়ারার উপকারিতা / Benefits of guava in Bengali -


পেয়ারার মধ্যে অনেক রকম ঔষধি গুনাগুন পাওয়া যায়, যেমন পেটের সমস্যা ঠিক করে, সর্দি কাশি সারাতে সক্ষম, মাথাব্যথা দাঁতের যন্ত্রণা এবং আরো অনেক রোগ ব্যাধি সারানোর ক্ষমতা পেয়ারার মধ্যে রয়েছে। এতে ভিটামিন প্রোটিন আয়রন ফোলেট এবং ক্যালসিয়ামের মতো গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি উপাদান উপস্থিত। তাহলে চলুন নিচে আমরা দেখে নিই পেয়ারায় কি কি উপকারিতা রয়েছে -

পেয়ারা ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে পারে / Guava prevents cancer in Bengali -


স্তন ক্যান্সার এবং প্রোস্টেট ক্যান্সারের নিরাময় করার জন্য পেয়ারা ব্যবহার করা যেতে পারে। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট লাইকোপিন (Lycopene) এবং ভিটামিন C ফ্রী রাডিক্যালস ( free radicals) এর বিরুদ্ধে লড়াই করতে পারে, যে সমস্ত ফ্রিরেডিকেলস ক্যান্সার সৃষ্টির কারণ হতে পারে। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি আটকাতে পারে।
অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ছাড়াও পেয়ারাতে ফাইবার পাওয়া যায়, যা কিনা পাইলস এবং পেটের ক্যান্সার আটকাতে সক্ষম। শুধুমাত্র পেয়ারা নয় এমনকি পেয়ারার পাতা খুবই উপকারী, একটি গবেষণা অনুসারে জানা গেছে যে পেয়ারার পাতার অর্ক ক্যান্সারের মতো মারাত্মক রোগ দূরে রাখতে সাহায্য করে।

ব্লাড সুগার রোগের জন্য উপকারী পেয়ারা / Guava benefits for diabetic patient -


বর্তমানকালে ব্লাড সুগার বা ডায়াবেটিস ব্যাপকহারে সাধারণ মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ছে। খোসাসহ পেয়ারা খাওয়া হলে ব্লাড সুগার কম করতে সাহায্য করে। এর সাথে সাথে পেয়ারায় উপস্থিত অ্যান্টি-ডায়াবেটিক এবং আন্টি-হাইপারলিপিডেমিক টাইপ 2 ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে।
পেয়ারা শুধুমাত্র ডায়াবেটিস নয় বরং অন্যান্য অনেক গম্ভীর রোগ সারাতে খুবই উপকারী একটি ফল। পেয়ারা পাতায় উপস্থিত আন্টি-হাইপারগ্লাইসেমিক এবং এন্টি হাইপারলিপিডেমিক ডায়াবেটিসের সমস্যা ঠিক করতে সক্ষম।

হজম শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে পেয়ারা / Guava benefits for digestive system in Bengali -


পেয়ারা আপনার পাচনতন্ত্র উন্নত করতে সাহায্য করে। পেয়ারায় উপস্থিত ফাইবার আপনার পাতলা পায়খানার সমস্যা বদহজম গ্যাস এবং পেটের অন্যান্য সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করে। পেয়ারায় উপস্থিত এন্টিমাইক্রোবিয়াল এবং আন্টি পাসমোডিক ( antispasmodic ) গুণ ডায়রিয়া সারাতে উপকারী।

শরীরের স্থূলতা কমাতে সাহায্য করে পেয়ারা / Guava benefits for weight loss in Bengali -


শরীরের ওজন স্থূলতা কম করার জন্য নিয়মিত ফল খাওয়া খুবই জরুরী। এইসব ফলের মধ্যে পেয়ারা হল একটি গুরুত্বপূর্ণ ফল। কেননা পেয়ারায় উপস্থিত প্রচুর ফাইবার কনটেন্ট শরীরের স্থূলতা কমাতে সাহায্য করে। এর সাথে সাথে এটাও স্বীকার করে নেওয়া হয় যে অন্যান্য খাদ্য পদার্থের তুলনায় পেয়ারার মধ্যে ক্যালোরি খুবই কম, এই কারণে এটা শরীরের ওজন কমাতে সাহায্য করে।

পেয়ারা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে পারে / Guava increases immunity power in Bengali -


ভিটামিন C শরীরের প্রতিরক্ষা প্রণালী উন্নত করে এবং রোগ সৃষ্টিকারী উপাদান গুলির বিরুদ্ধে লড়াই করতে পারে। এই পরিস্থিতিতে পেয়ারা সেবন করলে আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে, কেননা পেয়ারায় উপস্থিত ভিটামিন সি শরীরের কোষ সমূহকে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে এবং কয়েক প্রকার রোগের হাত থেকে শরীরকে সুরক্ষিত রাখে। তবে ভিটামিন C অতিরিক্ত লাভ করার জন্য পাকা পেয়ারা সেবন করা উচিত, কেননা পাকা ফলে সবসময়ই ভিটামিন সি অধিক থাকে।

চোখের জন্য পেয়ারা খুবই উপকারী / Guava benefits for eyes in Bengali -


আজকাল অল্প বয়সী শিশুদের মধ্যে চোখের সমস্যা খুব বেশি দেখা যায়, অতিরিক্ত টিভি দেখা, অধিক সময় পড়াশোনা করা, কম আলোতে লেখাপড়া করা এবং কখনো কখনো পুষ্টিকর খাদ্যের অভাব চোখের সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। ভিটামিন মিনারেল এবং ক্যালসিয়ামের ঘাটতি হলে চোখে ছানি পড়ার সমস্যা থেকে শুরু করে অন্যান্য কিছু রোগ সৃষ্টি হতে পারে। সুতরাং প্রতিদিন খাবারের সাথে পেয়ারা সেবন করুন, কারণ পেয়ারায় উপস্থিত ভিটামিন A চোখের দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে, এছাড়া পেয়ারার ভিটামিন C চোখের জন্য খুবই উপকারী।

পেয়ারা হার্ট ভালো রাখে / Guava benefits for heart in Bengali -


পেয়ারায় প্রচুর পরিমাণে ফাইবার পাওয়া যায়। এই ফাইবার খারাপ কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ করে। এই খারাপ কোলেস্টেরল এলডিএল হার্টের সমস্যা সৃষ্টি করে। পেয়ারায় উপস্থিত পটাশিয়াম হার্ট সুস্থ রাখতে সাহায্য করে এবং এই পটাসিয়াম ব্লাড প্রেসার এর ভারসাম্য বজায় রাখে। পেয়ারা পাতায় উপস্থিত পোলিসেকেরাইড এন্টি অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে এবং অক্সিডেটিভ স্ট্রেস কমাতে সাহায্য করে। অক্সিডেটিভ স্ট্রেস শরীরের নানা রকম ক্ষতি করতে পারে বিশেষ করে হার্ট আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা অনেক বেশি। সুতরাং আপনার হার্ট সুস্থ রাখতে হলে নিয়মিত পেয়ারা সেবন করতে পারেন।
পেয়ারা খেলে কি উপকার পাওয়া যায় / Guava benefits in Bengali | Ayurvedic-Care | পেয়ারা খেলে কি উপকার পাওয়া যায় / Guava benefits in Bengali | Ayurvedic-Care | Reviewed by Ayurvedic-Care on November 07, 2019 Rating: 5

আলু খেলে কি লাভ হয় আর কি ক্ষতি হয় জেনে নিন / Potato benefits and side effects in Bengali | Ayurvedic-Care |

November 05, 2019

আলু খেলে কি লাভ হয় আর কি ক্ষতি হয় জেনে নিন / Potato benefits and side effects in Bengali 

Potato Benifits in Bengali


ভারতে আলু এমন একটি জনপ্রিয় খাদ্য যেটা আমিষ এবং নিরামিষ উভয় রান্নাতে ব্যবহার করা হয়, বিশেষ করে পশ্চিমবাংলায় আলুর ব্যাপক ব্যবহার উল্লেখ করার মতো, প্রায় সব ধরনের ব্যঞ্জনে আলু ব্যবহার বাঙালিরা করে থাকেন। এই কারণে বাঙালির রান্না ঘরে অন্য কোন সবজি না থাকলেও আলু অবশ্যই উপস্থিত থাকবে।
এহেন আলুর যে কত গুণ রয়েছে তা আমরা ভাবতেই পারি না। আলু আমাদের শরীরে পুষ্টি প্রদান করার সাথে সাথে শরীরের ছোট বড় সমস্যা দূর করতে পারে, এমনকি ক্যান্সারের মতো মারাত্মক রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতা আলুর মধ্যে রয়েছে। তাহলে আসুন আজকের এই লেখা পড়ে আমরা জেনে নেই যে আলু খাওয়ার উপকারিতা।

আলুর উপকারিতা / Benefits of potato in Bengali -


আলু একটি সুস্বাদু এবং পুষ্টিকর খাদ্য পদার্থ। এটা শুধুমাত্র পেট ভরতে সাহায্য করে তা নয়, এতে উপস্থিত ঔষুধী গুণাগুণ শারীরিক সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে। আলু ফাইবার এবং পটাশিয়ামে ভরপুর। কোষ্ঠকাঠিন্য এবং স্থূলতার মত সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য ফাইবার খুবই সাহায্য করে। পটাশিয়াম শরীরের তরল পদার্থের ভারসাম্য বজায় রাখতে সাহায্য করে। এখন আমরা জেনে নেবো আলু খাওয়ার উপকারিতা এবং আলু আমাদের সুস্বাস্থ্যের জন্য কতটা প্রয়োজনীয়

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সক্ষম আলু / Potato benefits for blood pressure -


রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে আলু গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আলুতে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম পাওয়া যায়, আর এই পটাশিয়াম রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম। এছাড়াও আলুতে উপস্থিত ফাইবার রক্তচাপে আক্রান্ত ব্যক্তিদের হাইপারটেনশনের প্রভাব নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে।

উচ্চ রক্তচাপের একটা কারণ হলো কোলেস্টেরল। কিন্তু আলু কোলেস্টেরল ফ্রি খাদ্য পদার্থ। এইভাবে আলু রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

শরীরের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে ভিটামিন সি যথেষ্ট সাহায্য করে। একটি গবেষণা থেকে জানা গেছে যে ভিটামিন সি যুক্ত খাদ্য সাপ্লিমেন্টস সিস্টোলিক ব্লাড প্রেসার এবং ডায়াস্টোলিক ব্লাড প্রেসার কম করতে সক্ষম।

হার্টের জন্য উপকারী আলু / Potato benefits for heart in Bengali -


হার্ট সুস্থ রাখার জন্য আলু খুবই উপকারী। এটা কোলেস্টেরল ফ্রি খাদ্য পদার্থ। এই কারণে এটা সেবন করলে হার্ট সুস্থ থাকে। একটি গবেষণা অনুসারে জানা গেছে যে কোলেস্টেরলের স্তর বৃদ্ধি হলে হার্ট তার কার্যক্ষমতা হারাতে থাকে।

এছাড়াও আলুতে প্রচুর ফাইবার পাওয়া যায়, যা শরীরের স্থূলতা নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। একটি গবেষণা থেকে জানা গেছে যে শরীরের স্থূলতা বৃদ্ধি হলে উচ্চ রক্তচাপ জনিত সমস্যা সৃষ্টি হয়‌। আবার উচ্চ রক্তচাপের ফলে স্ট্রোক হবার সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যায়।

আলুতে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম পাওয়া যায়, যেটা হার্টকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। পটাশিয়ামযুক্ত খাদ্য পদার্থ সেবন করলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকলে হার্টের নানারকম রোগব্যাধি হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটা হ্রাস পায়।

মজবুত হাড়ের জন্য আলু / Potato benefits for bones in bengali -


হাড় ভালো রাখতে আলু খুবই উপকারী। আলুতে প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম পাওয়া যায়, এই ম্যাগনেসিয়াম হাড়ের জন্য একটি পুষ্টিকর খাদ্য উপাদান। শরীরের হাড়ের সংগঠনের জন্য ম্যাগনেসিয়ামের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার প্রমাণ পাওয়া গেছে।

আলুর মধ্যে পাওয়া যায় ক্যালসিয়াম। এই ক্যালসিয়াম হাড়ের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। হাড়ের বৃদ্ধি এবং মজবুতির জন্য ক্যালসিয়ামের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। শরীরে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি হলে অস্টিওপোরোসিসের মতো সমস্যা হতে পারে, যার ফলে হাড় দুর্বল এবং ভঙ্গুর হয়ে পড়ে। এছাড়া ক্যালসিয়ামের ঘাটতি হলে হাড়ের বিকাশ ব্যাহত হয় এবং হাড় ফ্র্যাকচার হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। সুতরাং শরীরে ক্যালসিয়ামের মাত্রা বজায় রাখার জন্য দৈনিক আহারে আলু সেবন করা উচিত।

হজম শক্তি বৃদ্ধি করে আলু / Potato benefits for digestive system -


আলুর খাদ্যগুণ পৌষ্টিকতন্ত্র সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। আলুতে প্রচুর ফাইবার পাওয়া যায়। এই ফাইবার পেট সম্বন্ধীয় সমস্যা দূর করতে সক্ষম। ফাইবার হল একটি গুরুত্বপূর্ণ খাদ্য উপাদান, যেটা হজম শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে।

এছাড়াও আলুতে পাওয়া যায় ভিটামিন b3 বা নিয়াসিন। এই নিয়াসিন আবার পৌষ্টিকতন্ত্রের উন্নতি সাধন করে।

ক্যান্সার প্রতিরোধ করে আলু / Potato prevents cancer in Bengali -


আপনি জানলে অবাক হবেন যে সাধারণ একটি আলু ক্যানসারের মতো ভয়ঙ্কর রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতা রাখে। আগেই উল্লেখ করা হয়েছে যে আলু কোলেস্টেরল ফ্রি খাদ্য পদার্থ এবং একটি গবেষণা থেকে জানা গেছে যে কোলেস্টেরল শরীরে নানারকম ক্যান্সার সৃষ্টি করতে পারে।

আলু ভিটামিন সি এর একটা উৎকৃষ্ট উৎস বলে গণ্য করা হয়। ভিটামিন সি আবার এন্টি অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করতে পারে‌। এই ধরনের আলু ক্যান্সারের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তুলতে পারে। বৈজ্ঞানিকদের মতে ভিটামিন সি ক্যান্সার থেরাপিতে ব্যবহার করা যেতে পারে।

এছাড়াও আলু ভিটামিন মিনারেল ফ্যাট প্রোটিন এবং কার্বোহাইড্রেটে পরিপূর্ণ। যেটা ক্যান্সারের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য শরীরকে পুষ্টি এবং ক্ষমতা প্রদান করে।

কিডনি স্টোন দূর করতে সাহায্য করে আলু / Potato removes kidney stones in bengali -


কিডনি স্টোন বাইরে বের করতে আলুর ক্ষমতা রয়েছে। আলু পটাশিয়ামের একটা উৎস এবং একটি রিপোর্ট অনুসারে বলা হয়েছে যে পটাশিয়ামের সাহায্যে কিডনি স্টোন দূর করা যেতে পারে। এছাড়াও আলুতে উপস্থিত ফাইবার কিডনি স্টোন বাইরে বের করতে সাহায্য করে। বৈজ্ঞানিকদের গবেষণায় জানা গেছে যে মহিলাদের রজঃনিবৃত্তির পরে ফাইবার নিয়মিত সেবন করলে কিডনি স্টোন হওয়ার সম্ভাবনা অনেক কমে যায়।

ডায়রিয়া সারাতে সক্ষম আলু / Potato benefits for diarrhoea in Bengali -


ডায়রিয়া জনিত সমস্যা দূর করতে আলু খুবই উপকারী। আলুতে জিংক এর মতো গুরুত্বপূর্ণ খাদ্য উপাদান পাওয়া যায়, যেটা ডায়রিয়া নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। একটি রিপোর্ট অনুসারে বলা হয় যে জিংকের ওরাল সাপ্লিমেন্ট একিউট ডায়রিয়া সারাতে সাহায্য করে। সাধারনত একিউট ডায়রিয়ার সমস্যা তিনদিন থেকে পাঁচ দিন পর্যন্ত চলতে পারে।

এছাড়া আলুর মধ্যে সোডিয়াম এবং পটাশিয়াম প্রচুর মাত্রায় পাওয়া যায়, এটা হল একপ্রকার ইলেকট্রোলাইট। এই ইলেক্ট্রোলাইট আবার ডায়রিয়া চলাকালীন সময়ে শরীরের তরল পদার্থ নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। এর ফলে ডায়রিয়া থেকে সেরে ওঠার সম্ভাবনা বাড়ে।

স্কার্ভি রোগ সারাতে সাহায্য করে আলু / Potato benefits for scurvy disease in Bengali -


স্কার্ভি হলো এমন একটি রোগ যার জন্য চিকিৎসাধীন নিরাময় করা প্রয়োজন‌। যেটা শরীরে ভিটামিন সি-এর ঘাটতি হলে সৃষ্টি হয়। ভিটামিন এক গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি উপাদান, যেটা শরীরে কোলেজন  নির্মাণ করতে প্রয়োজন (কোলেজন হল ত্বক, রক্ত ধমনী এবং কার্টিলেজে উপস্থিত এক প্রকার প্রোটিন)।
আলুতে উপস্থিত ভিটামিন সি শরীরের ভিটামিন-সি এর ঘাটতি পূরণ করে স্কার্ভি রোগ ঠিক করতে সাহায্য করে।

ব্রেন ঠিক রাখতে আলু সাহায্য করে / Potato benefits for brain in Bengali -


আলুর মধ্যে আলফা লিপোইক নামক অ্যাসিড পাওয়া যায়। যেটা মস্তিষ্কের বিকাশ করতে সাহায্য করে। বৈজ্ঞানিক গবেষণা অনুসারে বলা যায় যে অ্যালজাইমারে আক্রান্ত রোগীদের স্মৃতিশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে আলু। এছাড়াও আলুর মধ্যে ভিটামিন সি পাওয়া যায়, এই ভিটামিন সি নিউরোট্রান্সমিটার নামক একটি বিশেষ ব্রেন ক্যামিকেল উৎপাদন করতে সাহায্য করে। নিউরোট্রান্সমিটার মস্তিষ্কের কার্যপ্রণালী উন্নত করতে সক্ষম, যেমন মুড এবং ঘুম নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে।

আলুর অপকারিতা / Side effects of potato in Bengali -


কোন সন্দেহ নেই যে আলু হল একটি গুরুত্বপূর্ণ এবং পুষ্টিকর খাদ্য পদার্থ, কিন্তু আলু অতিরিক্ত সেবন করলে কিছু সমস্যা হতে পারে যেমন -

# আলু কার্বোহাইড্রেট সমৃদ্ধ একটি খাদ্য পদার্থ। আবার কার্বোহাইড্রেট অধিকমাত্রায় সেবন করলে শরীরের ক্যালরি বৃদ্ধি পেতে পারে, এর ফলে স্থূলতা বৃদ্ধির সম্ভাবনা বাড়তে পারে।

# আলুতে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম পাওয়া যায়, কিন্তু এই পটাশিয়াম অধিক মাত্রায় সেবন করলে হাইপারক্যালেমিয়া সৃষ্টি হতে পারে। এর ফলে বমি, বুকে ব্যথা, শ্বাস প্রশ্বাসের কষ্ট, মাথা ঘোরা ইত্যাদি সমস্যা হতে পারে।

# অধিক মাত্রায় আলু সেবন করলে টাইপ টু ডায়াবেটিসের সমস্যা হতে পারে।
আলু খেলে কি লাভ হয় আর কি ক্ষতি হয় জেনে নিন / Potato benefits and side effects in Bengali | Ayurvedic-Care | আলু খেলে কি লাভ হয় আর কি ক্ষতি হয় জেনে নিন / Potato benefits and side effects in Bengali | Ayurvedic-Care | Reviewed by Ayurvedic-Care on November 05, 2019 Rating: 5

ছোলা খাওয়ার 10 টি উপকারিতা / Health benefits of chickpeas in bengali | Ayurvedic-Care |

November 02, 2019

ছোলা খাওয়ার 10 টি উপকারিতা / Health benefits of chickpeas in bengali 

Chickpeas Chickpeas


ছোলা ভেষজ ঔষধি গুণে ভরপুর একটি খাদ্য পদার্থ। এই কারণে সকালে খালি পেটে জলে ভেজানো কাঁচা ছোলা খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। এছাড়া অঙ্কুরিত ছোলার অধিক পুষ্টিগুণের প্রমাণ পাওয়া গেছে। সুতরাং আপনি রোজ সকালে কাঁচা ছোলা এবং গুড় একসাথে খেতে পারেন, এইভাবে ছোলা সেবন করার উৎকৃষ্ট উপায়। আর আপনি যদি এভাবে ছোলা খেতে না পারেন তাহলে অবশ্যই ভাজা ছোলা প্রতিদিন এক দু' মুঠো খেতে পারেন, এতেও যথেষ্ট উপকার পাওয়া যায়।

ছোলার প্রকারভেদ / Types of chickpeas in Bengali -


সাধারণত ছোলা দুই প্রকারের পাওয়া যায় -

দেশী ছোলা - দেশী ছোলা ছোট আকারের হয়, আর এটা বাদামি বা তামাটে রঙের হয়।

কাবুলি ছোলা - দেশী ছোলার তুলনায় কাবুলি ছোলা আকারে অনেকটা বড় হয়। এই ছোলার রং হালকা সাদাটে ও ধূসর রঙের হতে পারে।

ছোলার উপকারিতা / Benefits of chickpeas in Bengali -


ছোলা যেমন শরীরকে প্রভূত পুষ্টি প্রদান করতে পারে, ঠিক তেমনি ছোলা সেবন করার মাধ্যমে আমরা নানা রকম রোগব্যাধির আক্রমণ থেকে সুরক্ষিত থাকতে পারি। এমনকি ব্লাড সুগার ও ক্যান্সারের মত গম্ভীর রোগ হওয়ার আশঙ্কা থেকে দূরে থাকা সম্ভব। নিচে ছোলার উপকারিতা নিয়ে আলোচনা করা হল -

(1) হজম শক্তি / digestive system -

আমাদের পৌষ্টিকতন্ত্রের জন্য ছোলা অত্যন্ত উপকারী। ছোলার মধ্যে ফাইবার অধিকমাত্রায় পাওয়া যায়, এই কারণে ছোলা পেট সম্বন্ধীয় নানারকম সমস্যা যেমন গ্যাস কোষ্ঠকাঠিন্য ডায়রিয়া বা পাতলা পায়খানার সমস্যা ঠিক করতে সাহায্য করে এবং হজম শক্তি বাড়াতে সক্ষম। একটি রিপোর্ট অনুসারে বলা যায় যে ফাইবার আসলে কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো পরিস্থিতি দূর করতে সক্ষম, এর সাথে সাথে কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে পারে। সুতরাং আপনার হজম শক্তি বৃদ্ধি করতে এবং ডাইজেস্টিভ সিস্টেম ঠিক রাখার জন্য প্রতিদিন সকালে ভেজানো কাঁচা ছোলা গুড় সহযোগে সেবন করতে পারেন।

(2) ব্লাড সুগার / blood sugar -

শরীরের রক্ত শর্করা নিয়ন্ত্রণ করতে ছোলার বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। একটি গবেষণায় প্রমাণ হয়েছে যে ছোলা শরীরের অতিরিক্ত ব্লাড সুগারের স্তর কম করতে সাহায্য করে। ছোলার মধ্যে লো গ্লাইসেমিক ইনডেক্স, ফাইবার এবং প্রোটিন এর মত পুষ্টিগুণ পাওয়া যায়।

(3) শরীরের ওজন স্থূলতা কম করার জন্য Reduce obesity in Bengali -

যারা অতিরিক্ত মোটা বা স্থূলতা আক্রান্ত, তাদের জন্য ছোলা খুবই উপকারী। যেমন আগে বলা হয়েছে যে ছোলা মধ্যে গ্লাইসেমিক ইনডেক্স খুবই কম, যার ফলে এটা পরোক্ষভাবে আপনার শরীরের স্থূলতা ও চর্বি কম করতে সাহায্য করে। এছাড়া ছোলার মধ্যে উপস্থিত রয়েছে প্রচুর ফাইবার, যেটা অতিরিক্ত স্থূলতা নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। সুতরাং শরীরের ওজন কম করার জন্য প্রতিদিন অন্তত দুবার দুমুঠো কাঁচা ছোলা খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন।

(4) হার্ট ঠিক রাখে এবং কোলেস্টেরল কম করে / Chickpeas benefits for heart in Bengali -


হার্টের জন্য ছোলা খুবই উপকারী। ছোলার মধ্যে পটাশিয়াম, ফাইবার এবং ভিটামিন সি, ভিটামিন বি 6 ইত্যাদি প্রচুর মাত্রায় পাওয়া যায়। এই ছোলা আসলে কোলেস্টেরল কম করতে সাহায্য করে, এর ফলে আপনার হার্টের রোগ হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটা কমে যায়। একটি গবেষণা থেকে জানা গেছে যে ছোলার মধ্যে উপস্থিত দ্রবণীয় ফাইবার এবং পটাশিয়াম হার্টের রোগ আটকাতে সক্ষম।

(5) ক্যান্সার / chickpeas prevent cancer in bengali


ছোলা সেবন করলে শরীরে ক্যান্সার সৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটা কমে যায়। একটি গবেষণা থেকে জানা গেছে যে ছোলার মধ্যে বিউটিরেট নামক ফ্যাটি এসিড পাওয়া যায়, যেটা শরীরের সেল প্রোলিফেরেশন প্রতিরোধ করতে সক্ষম। এর ফলে ক্যানসারাস টিউমার সৃষ্টি হওয়ার আশঙ্কা কমে যায়।

এছাড়াও ছোলাতে উপস্থিত লাইকোপিন, বায়োইকনিন এ, এবং সেপোনিন্স এর মতন বায়ো একটিভ কম্পাউন্ড ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে।

(6) চোখের জন্য উপকারী ছোলা / chickpeas benefits for eyes in bengali -


চোখ সুস্থ রাখার জন্য ছোলা একটি গুরুত্বপূর্ণ খাদ্যবস্তু। ছোলার মধ্যে বিটা ক্যারোটিন নামক জৈব রাসায়নিক পাওয়া যায়, যেটা চোখের জন্য খুবই উপকারী। ইজ রিলেটেড আই ডিজিজ স্টাডি অনুসারে জানা যায় যে বিটা ক্যারোটিন এএমডি অর্থাৎ দৃষ্টিশক্তি কমে যাওয়ার সমস্যা প্রতিরোধ করতে পারে। এছাড়া ছোলার মধ্যে ভিটামিন সি পাওয়া যায় যা কিনা আপনার চোখ ঠিক রাখতে সাহায্য করে।

(7) অ্যানিমিয়া, রক্তাল্পতা / chickpeas benefits for anaemia in bengali -


ছোলার চমৎকার পুষ্টিগুণ অ্যানিমিয়া বা রক্তাল্পতার মতো রক্ত সমস্যার সমাধান করতে সাহায্য করে, রক্তের ঘাটতি সাধারণত মহিলাদের শরীরে খুব বেশি লক্ষ্য করা যায়। এই সমস্যা শরীরের লাল রক্তকণিকার উৎপাদনে বাধা সৃষ্টি করে। এনিমিয়া সৃষ্টির সবচেয়ে বড় কারণ হলো শরীরে আয়রনের ঘাটতি হওয়া। ছোলার মধ্যে প্রচুর পরিমাণে আয়রন পাওয়া যায়। এই কারণে যারা অ্যানিমিয়া আক্রান্ত তাদের জন্য নিয়মিত ছোলা সেবন করা খুবই উপকারী। এছাড়া সাধারণভাবে যারা নিয়মিত ছোলা সেবন করেন তাদের এনিমিয়া বা রক্তাল্পতা রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।

(8) মজবুত হাড় / chickpeas benefits for strong bones in bengali -


হাড়ের জন্য উপকারী হলো দেশী ছোলা ও কাবুলী ছোলা। এতে প্রচুর মাত্রায় ক্যালসিয়াম পাওয়া যায় এবং ক্যালসিয়াম হাড়ের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ খাদ্য উপাদান। এটা আপনার অস্থি সুস্থ ও মজবুত বানাতে সাহায্য করে। শরীরে সাধারণভাবে ক্যালসিয়াম তৈরি হয় না, এই কারণে ক্যালসিয়ামের ঘাটতি পূরণ করার জন্য ক্যালসিয়াম যুক্ত খাদ্য সেবন করতে হয়। সুতরাং ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাদ্য হিসাবে প্রতিদিন জলে ভেজানো কাঁচা ছোলা এবং গুড় একসাথে সেবন করা উচিত।

(9) মহিলাদের হরমোন নিয়ন্ত্রণ / chickpeas benefits for female hormones -


মহিলাদের শরীর স্বাস্থ্যের জন্য ছোলা খুবই উপকারী। ছোলার মধ্যে প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট পাওয়া যায়, যা মহিলাদের রজঃনিবৃত্তির পরে খারাপ লক্ষণ দূর করতে সাহায্য করে। একটি গবেষণায় প্রমাণ পাওয়া গেছে যে ছোলা তার এস্ট্রোজেনিক গুণের কারণে রজঃনিবৃত্তির লক্ষণ এবং অস্টিওপোরোসিসের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে।

(10) গর্ভবতী মায়ের জন্য উপকারী ছোলা / Chickpeas benefits for pregnant women in Bengali -


গর্ভবতী মহিলাদের জন্য কাবুলি ছোলা খুবই উপকারী। এর সবচেয়ে বড় কারণ হলো ছোলার মধ্যে প্রচুর মাত্রায় ফোলেট পাওয়া যায়। এটা হল একটি আবশ্যকীয় ভিটামিন-বি, যেটা মা এবং ভ্রূণের বিকাশ করতে সাহায্য করে। গর্ভাবস্থার শুরুতে এবং গর্ভাবস্থার সময়ে পর্যাপ্ত মাত্রায় ফলিক অ্যাসিড শিশুর মস্তিষ্ক এবং মেরুদন্ডের সাথে সম্পর্কিত সমস্যা ঠিক করতে সাহায্য করে।
এছাড়া ছোলার মধ্যে আয়রন প্রোটিন জিংক এবং ক্যালসিয়াম এর মত গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টি উপাদান পাওয়া যায়। এর ফলে গর্ভাবস্থার সময়ে ভ্রূণকে উপযুক্ত পুষ্টি প্রদান করতে সক্ষম। এর ফলে মা সুস্থ সবল শিশুর জন্মদান করতে সক্ষম হন।
ছোলা খাওয়ার 10 টি উপকারিতা / Health benefits of chickpeas in bengali | Ayurvedic-Care | ছোলা খাওয়ার 10 টি উপকারিতা / Health benefits of chickpeas in bengali | Ayurvedic-Care | Reviewed by Ayurvedic-Care on November 02, 2019 Rating: 5
Powered by Blogger.